খোদার মধ্যে দৃশ্যত মানবসুলভ গুণাবলী থাকার তাৎপর্য কী?

অন্যায় কাজও কি আল্লাহর হুকুমে হয়?’ শীর্ষক পোস্টের সূত্রে একজন পাঠক জানতে চেয়েছেন, “স্রষ্টা যে অলওয়েজ অলগুড হবে তা আমরা কীভাবে বুঝতে পারি? উত্তর দিলে খুশি হবো।”

আমি বলেছি, “যেহেতু কারো পক্ষে খারাপ হওয়ার বা খারাপ কাজ করার যে নেসেসিটি, তা ঈশ্বরের মধ্যে না থাকায়, অর্থাৎ খারাপের অনুপস্থিতির কারণে তিনি ভালো। অলওয়েজ অলগুড।”

এরপর তিনি বলেছেন, “উত্তর দেয়ার জন্য ধন্যবাদ। তাহলে আমার আরেকটা সম্পূরক প্রশ্ন আছে: ‘অতঃপর যখন আমাকে রাগাম্বিত করল তখন আমি তাদের কাছ থেকে প্রতিশোধ নিলাম এবং নিমজ্জত করলাম। তাদের সবাইকে।’ (সূরা যুখরুফ: ৫৫) এটা কীভাবে ব্যাখ্যা করবেন?

আল্লাহ কীভাবে রাগ করতে পারেন, যেখানে রাগ হচ্ছে মানুষের একটা খারাপ বৈশিষ্ট্য? আপনি রাগকে অবশ্যই গুণ বলবেন না। এখানে কি আল্লাহর রাগের বা প্রতিশোধের কোনো নেসেসিটি রয়েছে?”

উক্ত পাঠকের এই প্রশ্নের প্রেক্ষিতে ইউটিউব চ্যানেল ‘যুক্তি ও জীবন’-এ গতকাল আমি এই ভিডিও বক্তব্যটি দিয়েছি।

পোস্টটির ফেসবুক লিংক

আপনার মন্তব্য/প্রশ্ন লিখুন

ইমেইল অ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত ঘরগুলো পূরণ করা আবশ্যক।

*